করোনা ভাইরাস ও পেয়াজ চোরের গল্প | Bangladesh Coronavirus Situation

Bangladesh Coronavirus Situation MUST READ |

গল্পটি আমার নয় ফেসবুক থেকে সংগৃহিত। তবে বর্তমান বাংলাদেশের করোনা ভাইরাস পরিবেশের সাথে গল্পটির অনেক মিল আছে। তাই গল্পটি মিস করবেন না আশাকরি। একদিন গ্রামে এক চোর পেঁয়াজ চুরি করতে গিয়ে ধরা খেলো। গ্রাম্য শালিসে মাতবররা চোরকে বললো, হয় তুমি ১০০ টা কাঁচা পেঁয়াজ খাবা নয়তো একশটা বেতের বাড়ি খাবা। তোমার মর্জি । Bangladesh Coronavirus Situation COVID-19 BD.

Bangladesh Coronavirus Situationচোর ভেবে চিনতে কয়, পেঁয়াজ খামু। ১৫ টা পেঁয়াজ খাওয়ার পর মনে হয় সে পেঁয়াজ না, বিষ খাইতেছে।
চোর বললো, আমি আর পেঁয়াজ না, বেতের বাড়িই খাবো। ১৫ টা বেতের বাড়ি খাওয়ার পর চোরের মনে হয় শরীরের হাড্ডি মাংস সব আলাদা হয়ে যাচ্ছে। চোর বললো, থামেন, বেতের বাড়ি না, আমি পেঁয়াজই খাবো।

এইভাবে ১৫ টা বেতের বাড়ি, ১৫ টা পেঁয়াজ খাইতে খাইতে একসময় ১৪০ টা পেঁয়াজ, ১৪০ টা বেতের বাড়ি খাওয়া শেষ, তারপরও কোনটাতেই টানা ১০০ টা পূরণ হলো না চোরের। চোরের জান যায় যায় অবস্থা……

করোনা ভাইরাসে আমাদের দেশের দশাও প্রায় ঐ পেয়াজ চোরের মত।

প্রেথমে এলো লকডাউন । তবু তাকে পাত্তা না দিয়ে হাজার হাজার লোক দল বেধেঁ বাড়িতে গেলো।
সাধারণ ছুটি একের পর এক বেড়ে গেলো, তবু লকডাউন কেও ভালমত মানতেই পাড়ছে না। ওদিকে গরিবরা মরছে ক্ষুধার জ্বালায়, খাবারের জন্য তারা বাধ্য হয়ে ঘর ছেড়ে বাইরে বের হয়ে যাচ্ছে…

আবার যখন লকডাউন শিথিল করা হলো, যাতে সবাই ব্যবসা বানিজ্য চাকরী বাকরী করে খেতে পারে। হাজার হাজার মানুষ ঘর ছেড়ে বাইরে গিয়ে যেইনা দোকান পাট খুলে নিয়ে বসেছে, অমনি আবার পুলিশ দিয়ে, ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে দোকান পাট সব বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। খুললেই জড়িমানা বা শাস্তি। ইতিমধ্যেই ছুটি আবার বেড়ে গেছে। ঈদের ছুটিতে সবাইরে বাড়িতে থাকতে বলা হয়েছে। সবার যখন বাড়ি যাওয়া দরকার তখন আবার গন পরিবহন বন্ধ। কিন্ত প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস চলাচলে কোন সমস্যা নাই।

কোথাও কোথাও সকাল থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত সমস্ত দোকান পাট খোলা সন্ধ্যার পর বন্ধ। আবার কোথাও সকাল থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত খোলা তারপর থেকে বন্ধ। অল্প সময়ের মধ্যে বাজার করার তাগিদে দোকান পাটে তাই চলছে প্রচন্ড ভীর। একদিকে গার্মেন্টস এ প্রতিদিন হাজার হাজার শ্রমিকের ঢল। ব্যাংকে একই সাথে শত শত লোকের সমাগম ওদিকে আবার মসজিদ বন্ধ। করোনা পরিস্থিতী নিয়ন্ত্রণে বড় আজিব লকডাউন পরিবেশ বজায় রেখে চলছি আমরা।

অবশেষে তাই একদিন দেখা যাবে, এই লকডাউনেই আটকে আছি আমরা এবং আটকে আছে আমাদের দেশ। অনাহারে… বিনা চিকিৎসায়, আত্মহত্যায়, হার্টের রোগে, মানসিক রোগে মৃত্যুর মিছিল থামে নাই, কারণ আমরা কিন্তু দুই নীতিতেই হাঁটছি। সেই পেঁয়াজ চোরের মতন।

:ফেসবুক থেকে সংগৃহিত ও সম্পাদিত ।

Leave a Reply